প্রচ্ছদ অপরাধ পাবনায় এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

পাবনায় এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

62
0
পাবনায় এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা
পাবনায় এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা

পাবনা প্রতিনিধি: গতকাল মঙ্গলবার ২৬শে জুলাই পাবনার আমিনপুর থানাধীন দাঁতিয়া গ্রামের বাগেরচালা পুকুরপাড় এলাকায় নাছিমা(৩০) নামের এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যা করেছে তার স্বামী মনিরুল(৩৭) এমন অভিযোগ করছেন নিহত গৃহবধু  নাছিমার স্বজনেরা ।

অভিযুক্ত স্বামী মনিরুল আমিনপুর থানার দাঁতিয়া গ্রামের মোঃ খালেকের ছেলে । মনিরুল আমিনপুর সততা প্লাস ইটের ভাটায়  দীর্ঘদিন যাবৎ অটোচালক হিসাবে কর্মরত আছেন বলে জানা যায় ।

ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনায় নিহত নাছিমার ভাবী সাংবাদিকদের জানান,

নাছিমা সাংসারিক জীবনে সুখি ছিলো না । তিন বছর আগে মনিরুল ২য় বিয়ে করার পর থেকেই নাছিমা তার ২ ছেলে সন্তান নিয়ে খুব কষ্টে দিন পার করছিল । মনিরুল, ২য় স্ত্রী ও তার পরিবারের লোকজন নাছিমাকে জালা যন্ত্রনা করায় একপর্যায়ে সে বছর দুয়েক আগে জীবিকার তাগিদে ঢাকায় পারি জমায় । গিয়ে ভর্তি হন একটি পোশাক কারখানায় । গেল কয়েকদিন আগে কোরবানীর ঈদে মনিরুল ও তার ২য় স্ত্রী মোবাইল ফোনে একসাথে মিলেমিশে সংসার করার মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে  পূব পরিকল্পনা অনুযায়ী নাছিমাকে কৌশলে বাড়ীতে নিয়ে আসে । নাছিমা বাড়ীতে আসার পর পরই  তার স্বামী মনিরুল ভালো ভালো কথা বলে নাছিমার কষ্টের অর্জিত টাকাগুলো হাতিয়ে নেয় । এর পর থেকেই শুরু হয় নাছিমার উপর পাশবিক অত্যাচার ।

সেই অত্যাচারের ধারাবাহিকতায় গতকাল মঙ্গলবার ২৬শে জুলাই সন্ধার দিকে নাছিমাকে বেপরোয়াভাবে মারধর করলে একপর্যায়ে নাছিমা গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে । পরে উপায় অন্তর না পেয়ে নাছিমাকে তার স্বামী মনিরুল ও আরেকজন ব্যক্তিসহ  প্রথমে নিকটস্থ কাশিনাথপুর ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে তারা উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেকসে নিয়ে যেতে বলেন । মাইক্রোবাস যোগে নাছিমাকে সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করলে আবার মৃত নাছিমাকে আনা হয় সেই কাশিনাথপুর ক্রিসেন্ট হাসপাতালের সামনে । সেখানে মৃত নাছিমাকে রেখে সুকৌশলে মাইক্রোবাসের ড্রাইভারকে বোকা বানিয়ে অভিযু্ত মনিরুল ও তার সাথে আসা লোকটি পালিয়ে যায় ।

পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল কাশিনাথপুর ক্রিসেন্ট হাসপাতালের সামনে আমিনপুর সুজানগরের সার্কেল অফিসার, আমিনপুর থানার ওসি, ওসি তদন্ত, থানার অন্যান্য অফিসাবৃন্দসহ, নাছিমার আত্তীয় স্বজনেরা ছুটে আসেন ।

আলমগীর কবরি পল্লব/মাহা