প্রচ্ছদ দেশজুড়ে মানিকগঞ্জে নানা আকারের নৌকা থাকলেও নেই ক্রেতাদের ভিড়

মানিকগঞ্জে নানা আকারের নৌকা থাকলেও নেই ক্রেতাদের ভিড়

41
0

মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ মানিকগঞ্জে ঘিওরে নৌকার হাটে নানা আকারের নৌকা থাকলেও নেই ক্রেতাদের ভিড়। এবার পানি না বাড়ায় নৌকার চাহিদা বাড়েনি বলে জানিয়েছেন নৌকার কারিগরেরা।

প্রতিবছর বর্ষায় এখানে বসে ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট। বর্ষা মৌসুমে ঘিওরে সরকারি কলেজ সংলগ্ন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে বসে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী এই নৌকার হাট। সকাল থেকে শুরু করে নৌকা বেচা-কেনা চলে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত। এছাড়া, সেখানে প্রতিদিনই নৌকা বেচা-কেনা হয়। মহামারি করোনার জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঘিওর উপজেলা কেন্দ্রীয় ঈদগাঁ জামে মসজিদ মাঠে বসেছে নৌকার হাট। ওই হাটে ক্রেতাদের জন্য থরে থরে সাজানো রয়েছে বাহারি হাজারো নৌকা কিন্ত ক্রেতা কম।

মানিকগঞ্জ জেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী জেলা টাঙ্গাইলের নাগরপুর, ঢাকা জেলার সাভার ও সিরাজগঞ্জ জেলার মানুষ নৌকা বেচা-কেনা করতে আসেন এই হাটে।বর্ষায় পানি কম হওয়ায় ঘোড়ার গাড়ি ও ভ্যানে করে নৌকা বাড়িতে নিতে হচ্ছে। পরিবহন ব্যয় বেশি হওয়ায় নৌকার ক্রেতা কমেছে। প্রকার ভেদে ৩ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা পর্যন্ত একেকটি ডিঙি নৌকা বিক্রি হয়। সাধারণত মেহগনি, কড়ই, আম চাম্বল ও রেন্ট্রি গাছের কাঠ দিয়ে নৌকাগুলো তৈরি করা হয়।

জেলার প্রায় সব কয়েকটি উপজেলার বুক চিরে বয়ে গেছে ছোট বড় বেশ কয়েকটি নদী। আর এ কারণে বর্ষার শুরু থেকেই নিম্ন অঞ্চলের বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর এক মাত্র ভরসার যান হলো নৌকা।তবে পানি না বাড়ায় নৌকার চাহিদা বাড়েনি, তারপরেও ঘিওর হাটে প্রচুর নৌকা উঠেছে বিক্রির জন্য।

মাসিকগঞ্জে তুলনামূলক পানি না হওয়ার কারণে দিশেহারা হয়ে পরেছেন নৌকা ব্যাবসায়ীরা। পানি না বাড়ায় এবং লকডাউন এর কারণে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পরেছেন নৌকার ব্যবসায়ীরা। নৌকা নিয়ে এ বছর অনেক ভোগান্তিতে পরেছি বলে জানান এ ব্যাবসায়ী।

মোঃ আরিফুর রহমান অরি /শা